১০০ টি তথ্য~~Hedaet Forum~~


Email: Password: Forgot Password?   Sign up
Are you Ads here? conduct: +8801913 364186

Forum Home >>> Blogs, Variety >>> ১০০ টি তথ্য

Tamanna
Modarator Team
Total Post: 7426

From:
Registered: 2011-12-11
 

১০০ টি মজার তথ্য



১। শিশু বয়সে মানুষের শরীরে ৩০০ হাড় থাকে, বড় হলে কিছু হাড় জোড়া লেগে হাড়ের সংখা হয় ২০৬।



২। একটি সাধারন পেন্সিল দিয়ে ৫ কিলো মিটারেরও বেশী লেখা যায়।



৩। মানুষের শরীরের চার ভাগের এক ভাগ হাড় থাকে দুই পায়ের পাতায়।



৪। শব্দের চেয়ে দ্রুতগতি সম্পন্ন প্রথম আবিস্কার – চাবুক।



৫। কোকা কোলার রঙ আসলে সবুজ। এটাকে বাড়তি রঙ মিশিয়ে কালো করা হয়।



৬। আফ্রিকার মাতামী উপজাতির মধ্যে মানুষের মাথার খুলি দিয়ে ফুটবল খেলার প্রচলন আছে।



৭। মানুষের উরুর হাড় কংক্রিটের চেয়েও শক্ত।



৮। তেলাপোকার মাথা কেটে ফেললেও এটা কয়েকদিন বাঁচে। এর পরে না খেতে পেরে মারা যায়।



৯। চোখ খোলা রেখে হাঁচি দেওয়া যায় না। খবরদার, চেষ্টাও করবেন না। চোখ খুলে বেরিয়ে যেতে পারে।



১০। ১৩৮৬ সালে ফ্রান্সে , একটি শিশুকে হত্যা করার অপরাধে একটি শুকরকে প্রকাশ্যে ফাসি দেওয়া হয়েছিল।



১১। প্রত্নতত্ত্ববিদেরা ৯০০০ বছর পুরাতন চুইং গাম খুজে পেয়েছেন।



১২। বিজ্ঞানীরা অনুসরন করে দেখতে পায় যে প্রজাপতি ৫০০০ কিলোমিটার পর্যন্ত দূরে যেতে পারে।



১৩। এক পাউন্ড মধু উতপন্ন করার জন্য একটি মৌমাছিকে ২০ লক্ষ ফুলের কাছে যেতে হয়।



১৪। প্রাচীন জাপানে একমাত্র অন্ধ ব্যাক্তিরাই বাড়ি বাড়ি গিয়ে ম্যাসাজ করার অনুমতি পেত।



১৫। আঙ্গুলের ছাপের মতন জিহ্বার ছাপও প্রত্যেকের আলাদা।



১৬। আপনার পুর্বের ২৫ পুরুষ পর্যন্ত আত্মীয় হিসাব করলে আপনার মোট আত্মীয়র সংখা তিন কোটি ছাড়িয়ে যাবে।



১৭। আধুনিক মহাকাশযানে চড়ে বিশ্বের সবচেয়ে কাছের তারাতে যেতে লাগবে ৭০ হাজার বছর।



১৮। উল্কাপাতের ফলে সব ডাইনোসার মারা গেল। অথচ সেই আমলের প্রানী কুমির, কচ্ছপ বেচে রইল।



১৯। মধু একমাত্র খাবার, যেটা পচে না।



২০। এস্কিমোদের (বরফের অঞ্চলের অধিবাসী) ভাষাতে “বরফ” শব্দটির শতাধিক প্রতিশব্দ রয়েছে। কিন্তু ওদের ভাষাতে – “হ্যালো” বলার মতন কোন শন্দ নেই।



২১। আইনস্টাইন কখনো মোজা পড়তেন না।



২২। মানুষ ঘুমের ভেতর সারা জীবনে একবার হলেও হেটে থাকে।



২৩। উঠপাখির চোখ তার মাথার ঘিলুর চেয়ে বড়।



২৪। সিগারেট লাইটার আবিস্কার হয়েছে দিয়াশলাই এর আগে।



২৫। বিশ্বের সবচেয়ে বড় চাকুরীদাতা হচ্ছে ভারতীয় রেলওয়ে যেখানে ১৬ লক্ষ লোক কাজ করে।



২৬। জন্মানোর পরে শিশুরা রঙ দেখতে পায় না। এর পরে আস্তে আস্তে রঙ দেখা শেখে। চেনে আরো পরে।



২৭। গ্রীক জাতীয় সঙ্গীত ১৫৮ লাইন।



২৮। ১৫ শতাব্দীর আগের লেখাতে কোন দাঁড়ি, কমা ইত্যাদি থাকত না।



২৯। বিশ্বের সবচেয়ে বড় বীজ হচ্ছে – নারিকেল।



৩০। আপেলের বীজে সায়নাইড (সবচেয়ে মারাত্মক বিষ) রয়েছে।



৩১। সারা বিশ্ব একবার ঘুরে আসতে পারে এমন লম্বা মাকড়শার জালের ওজন হবে মাত্র এক পাউন্ড।



৩২। চীন দেশের সবাই যদি একবার, একসাথে ৩/৪ ফুট উপর থেকে মাটিতে লাফ দিয়ে পড়ে তাহলে পৃথিবী তার কক্ষপথ থেকে সরে যাবে।



৩৩। সবচেয়ে ছোট যুদ্ধ হয় ১৮৯৬ সালে ব্রিটেন ও জাঞ্জিবার এর মধ্যে – মাত্র ৩৮ মিনিট।



৩৪। নিজেই নিজেকে সুড়সুড়ি দেওয়া যায় না – এটা চেষ্টা করতে পারেন।



৩৫। মানুষের ফুসফুস প্যাঁচানো বা কোকড়ানো। এটাকে ছড়িয়ে মাদুরের মতন বিছিয়ে দিলে এটি প্রায় একটি টেনিস কোর্টের সমান বড় হবে।



৩৬। কুকুরের শ্রবন শক্তি অসাধারন। আমরা যেই শব্দটা ১০ ফুট দূর থেকে শুনতে পাই সেই শব্দটা কুকুর ১০০ ফিট দূর থেকেও শোনে।



৩৭। সবচেয়ে বেশী মানুষের মৃত্যু ঘটায় যে প্রানী – মশা ।



৩৮। বিশ্বের সব মানুষকে যদি (অনুপাত ঠিক রেখে) ১০০ জনে নামিয়ে আনতে পারেন। তাহলে এর মধ্যে ৫৭ জন এশিয়ান, ২১ জন ইউরোপিয়ান, ১৪ জন আমেরিকান ও ৮ জন আফ্রিকান পাবেন। আর নিজের কম্পিউটার আছে এমন লোক পাবেন মাত্র ১ জন।



৩৯। হাতি পায়ের আঙ্গুলের উপরে ভর করে হাটে কারন তাদের পাতার পেছনের অংশটিতে কোন হাড় নেই, শুধুই চর্বি।



৪০। জন্মের পর থেকেই আমাদের চোখের আকার একই আছে। কিন্তু নাক ও কান বড় হচ্ছে, বেড়েই চলছে।



৪১। শরীরের সবচেয়ে শক্তিশালী মাংশপেশী – জিহ্বা ।



৪২। সাদা ভাল্লুকের লোম সাদা নয় বরং স্বচ্ছ। আলোর প্রতিফলনের জন্য এটাকে আমরা সাদা দেখি।



৪৩। নীল তিমির রক্তের নালী এত মোটা যে এর মধ্যে দিয়ে একজন মানুষ সাঁতার কাটতে পারে।



৪৪। যারা বাম হাতে কাজ করে অভ্যস্ত তারা একটি বোতলের মুখ পেঁচিয়ে সহজে খুলতে পারে।



৪৫। কী-বোর্ডের উপরের লাইনেই সব অক্ষর রয়েছে, এমন সবচেয়ে বড় ইংরেজী শব্দ Typewriter।



৪৬। বিখ্যাত চিত্রকর্ম মোনালিসার কোন ভ্রু নেই ।



৪৭। পিঁপড়া কখনো ঘুমায় না ।



৪৮। টেলিফোনের আবিস্কারক, গ্রাহাম বেল, কখনো তার মা ও স্ত্রীকে ফোন করেননি। কারন তার দুজনেই বধির ছিলেন।



৪৯। শিশুদের হাঁটুতে বাটি/টুপি থাকে না। এটা গজায় ২ বছর বয়সের পরে।



৫০। প্রজাপ্রতি খাদ্যের স্বাদ গ্রহন করে পা দিয়ে।



৫১। আধুনিক মহাকাশযানে চড়ে বিশ্বের সবচেয়ে কাছের তারাতে যেতে লাগবে ৭০ হাজার বছর।



৫২। ঊটের চোখের পাতা তিনটি।



৫৩। টাকা আসলে এক ধরনের তুলা দিয়ে তৈরি। কাগজ নয়।



৫৪। পাকস্থলীর ভেতরে, প্রতি ১৫ দিনে, নতুন আবরন তৈরি হয়। তা না হলে পাকস্থলী নিজেই নিজেকে হজম করে ফেলত। হজম করার কিছু না পেলে পাকস্থলী নিজেকেই হজম করা শুরু করে।



৫৫। হাঁসের ডাকের প্রতিধনি (echo) হয় না।



৫৬। চকলেট কুকুরের শরিরে জন্য এত ক্ষতিকর যে এটা একটি কুকুরকে মেরেও ফেলতে পারে।



৫৭। মানুষের মতন কুকুর বেড়ালও ডান-হাতি বা বাম-হাতি হয়।



৫৮। নকল চার্লী চ্যাপলিন সাজার প্রতিযোগীতায় গোপনে অংশ নিয়ে চার্লী চ্যাপলিন নিজেই ৩য় স্থান অধিকার করেন।



৫৯। লাইব্রেরী থেকে সবচেয়ে বেশী চুরি হওয়ার রেকর্ড করেছে যে বইটি - Guinness Book of Records।



৬০। গুহা থেকে বের হবার সময় বাদুর সব সময় বাঁয়ে যায়। কখনো ডানে নয়।



৬১ । ব্রিটিশ পার্লামেণ্টে স্পিকার এর কথা বলার অনুমতি নেই।



৬২। ডিনামাইট তৈরির একটি উপাদান – বাদাম। লিপস্টিক তৈরির একটি উপাদান – মাছের আশ।



৬৩। বাঘের শুধু লোমই নয়, চামড়াও ডোরা কাটা।



৬৪। গরম পানি, ঠান্ডা পানির চেয়ে দ্রুত জমে বরফ হয়।



৬৫। উটের দুধ জমে দই হয় না।



৬৬। মানুষের ব্রেনের ৮০% ই পানি।



৬৭। হাতের নখ, পায়ের নখের চেয়ে ৪ গুন দ্রুত বাড়ে।



৬৮। ডলফিন একই সাথে ঘুমাতে ও সাঁতার কাটতে পারে।



৬৯। গ্যালিভার্স ট্রাভেলস্ (লিলিপুটের গল্প) গল্পে, মঙ্গল গ্রহের দুটি উপগ্রহ, এর আকার, দুরত্ব ইত্যাদি বিষয়ে সঠিক বর্ননা রয়েছে। লেখক জনাথন সুইফট এই সঠিক বর্ননা করেন উপগ্রহ দুটি আবিস্কার হবার প্রায় ১০০ বছর আগে।



৭০। একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের শরীরে ২ থেকে ৯ পাউন্ড পর্যন্ত ব্যাকটেরিয়া থাকে।



৭১। দুনিয়ার সব সমুদ্রে মোট যত গ্লাস জল আছে – তার চেয়ে বেশী সংখ্যক পরমানু আছে এক গ্লাস জলে।



৭২। মানুষ প্রাচীণ কাল থেকে ঘোড়ায় চড়লেও – পা দানি আবিস্কার করতে হাজার বছরের বেশী সময় লেগেছে।



৭৩। আপনার পুরাতন কোষ মরে যায়, নতুন কোষ জন্মায়। এভাবে প্রতি সাত বছর পরে শরীরের পুরাতন কোন কোষই আর অবশিস্ট থাকে না। সবই নতুন কোষ। এর মানে, যুক্তিগত ভাবে, ৭ বছর আগের আপনি আর এই আপনি এক নন।



৭৪। গঠন প্রনালী ও কার্য প্রনালীর দিক দিয়ে বিচার করলে গাছ মানুষের ফুসুফুসের ঠিক বীপরিত।



৭৫। ছাগলের চোখের মনি আয়তকার (চারকোনা)।



৭৬। দুনিয়ার সব পিপড়ার মোট ওজন, সব মানুষের মোট ওজনের চেয়ে বেশী।



৭৭। পেঙ্গুইন একটি পাথর উপহার দিয়ে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। এরা সাধারনত এক সঙ্গীতেই জীবন কাটিয়ে দেয়।



৭৮। কোনদিন দাড়ি না কাটলে বা ছাটলে সেটা বুড়ো বয়সে ৩ ফুট লম্বা হয়।



৭৯। চেঙ্গিস খানের বংশবিস্তার এমন বিশাল ছিল যে গড় হিসাবে আমাদের প্রতি ২০০ জনের মধ্যে একজন তার আত্মীয়।



৮০। কম্পিউটার প্রিন্টার এর কালির দাম পেট্রোল এর প্রায় এক হাজার গুন বেশী।



৮১। মশার দাত আছে। যদিও মশা মাদেরকে কামড়ায় না। হুল ফোটায়।



৮২। স্ট্রবেরী (Strawberry) ফল যার বীজ ফলের বাইরে থাকে ।



৮৩। ফুটবল খেলোয়াড় একটি ম্যাচে, গড়ে ১২ কি মি দৌড়ায়।



৮৪। মাথা না ঘুরিয়েই পেছনে দেখতে পায় – খরগোশ ও টিয়া পাখি।



৮৫। মুল টাইটানিক জাহাজটি বানাতে খরচ হয়েছিল ৭০ লক্ষ ডলার। ওদিকে টাইটানিক সিনেমা বানাতে খরচ হয়েছে ২০ কোটি ডলার।



৮৬। রেগে গেলে জলহস্তির ঘামের রঙ লাল হয়ে যায়।



৮৭। পেঁয়াজ ছোলার সময় চুইং গাম চাবালে চোখ জ্বালা করেনা ।



৮৮। তাইওয়ানের একটি কোম্পানী গম দিয়ে খাবার থালা (প্লেট) বানায়। আপনি খাবার খাওয়ার পরে প্লেটও খেয়ে ফেলতে পারবেন।



৮৯। জিরাফ জল ছাড়া উটের চেয়ে বেশীদিন চলতে পারে।



৯০। বাইরের ধুলো বালি ঘরে না আসলে, আপনার ঘরের বেশীর ভাগ ধুলো বা ময়লা আসে আপনার মৃত চামড়া (কোষ) থেকে।



৯১। বিশ্বের সবচেয়ে বেশী বিমান আছে যে বাহিনীর কাছে তা হল আমেরিকার বিমান বাহিনী। এর পরের অবস্থানে রয়েছে আমেরিকার নৌ-বাহিনী। হ্যা, নৌ- বাহিনী।



৯২। স্টারফিশ একমাত্র প্রানী যে তার পাকস্থলী উলটে দিতে পারে।



৯৩। ইজরায়েলের ডাকটিকিটের পেছনে যে আঠা থাকে সেটা “কশার” সার্টিফিকেট প্রাপ্ত। কশার = ইহুদী ধর্মের হালাল।



৯৪। আমেরিকার ইন্ডিয়ানা ইউনিভার্সিটির লাইব্রেরী ভবনটি প্রতি বছর এক ইঞ্চি করে মাটিতে দেবে যাচ্ছে। এর কারন হল লক্ষ বইয়ের ওজন। ইঞ্জিনিয়ারেরা ভবনটি বানানোর সময় বইয়ের ওজনের কথা চিন্তা করেনি।



৯৫। মৃত্যদন্ড কার্যকর করার ইলেকট্রিক চেয়ার আবিস্কার করেছিলেন একজন ডেন্টিস্ট মানে দাঁতের ডাক্তার।



৯৬। একজন ৭৫ বছর বয়সের মানুষ স্বাভাবিকভাবে মোট ২৩ বছর ঘুমিয়েছে ।



৯৭। তিমি মাছের জিহ্বার ওজন একটি হাতির চেয়ে বেশী।



৯৮। যেটাকে ইংরেজিতে “ফ্রেঞ্চ কিস” বলে - সেই একই জিনিস ফ্রান্সে “ইংলিশ কিস” নামে পরিচিত। কেউই নিজের ঘাড়ে দোষ নেবে না।



৯৯। প্রতি তিন সেকেন্ডে বিশ্বে ৯টি শিশু জন্মায়। ওদিকে প্রতি তিন সেকেন্ডে মারা যায় ৪ জন। অর্থাৎ, প্রতি তিন সেকেন্ডে বিশ্বের জনসংখা বাড়ে ৫ জন। তার মানে, আপনি এই দুটি লাইন পড়ার ভেতরেই বিশ্বের জনসংখা ৫-৭ জন বেড়ে গেছে।



১০০। পৃথিবী যদিও নিজ অক্ষে ঘন্টায় ১০০০ মাইল বেগে ঘোরে, কিন্তু অবিশ্বাস্য গতিতে সামনের দিকে এগিয়ে চলে, ঘন্টায় প্রায় ৬৭০০০ মাইল বেগে ।

তথ্যসূত্র: ইন্টারনেট হতে সংগ্রহ