নারী, যৌবন ও নির্বাচিত প্রবন্ধ: ২৩. শিক্ষা~~Hedaet Forum~~


Email: Password: Forgot Password?   Sign up
Are you Ads here? conduct: +8801913 364186

Forum Home >>> Literature >>> নারী, যৌবন ও নির্বাচিত প্রবন্ধ: ২৩. শিক্ষা

Tamanna
Modarator Team
Total Post: 7485

From:
Registered: 2011-12-11
 

২৩. শিক্ষা
ইসলাম ধর্মের মূল ভিত্তি পাঁচটির প্রথমটিই হলো কালিমা। সেই কালিমারও পূর্বে শিক্ষার গুরুত্ব পবিত্র কুরআনেই দেয়া হয়েছে। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে যে, ‘তোমরা শিক্ষা লাভ কর যে, আল্লাহ ছাড়া কোন ইলাহ নেই।’ অর্থাৎ আগে শিক্ষা পরে কালিমা। মানুষ জীবনকে বাজী রেখে যুদ্ধ করে। যুদ্ধবন্দীদের মহানবী শিক্ষার বিনিময়ে মুক্তি দিতেন। কাজেই শিক্ষার গুরুত্ব কত বেশী তা বুঝা দরকার। কারো বিয়ে করতে দেনমোহরের টাকা না থাকলে, মহানবী শিক্ষার বিনিময়ে দেনমোহর ধার্য করতেন। শিক্ষার গুরুত্ব তা এভাবেই বুঝা যায়। মহানবী সাহাবীদের বিদেশী ভাষা শিক্ষারও তাগিদ দিতেন। কারণ বিদেশে ইসলাম প্রচারের জন্য চিঠি-পত্র লেন-দেন করতে হত।
শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষা হলো কোন বিষয়/বস্তু সম্পর্কে জানা। আদম আ:-কে আল্লাহ তা‘আলা ফেরেস্তাদের সেজদা করতে বললেন, কারণ আদম আ:-কে আল্লাহ তা‘আলা এমন সব বিষয় ও জিনিষের নাম শিক্ষা দিয়েছিলেন, যা ফেরেস্তারা জানতো না। সেই শিক্ষার জন্য মানুষের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করা হয়েছে। যে কোন সাধারণ শিক্ষাই শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের জন্য যথেষ্ট। তবে হাঁ ধর্মীয় শিক্ষার গুরুত্ব অবশ্যই বেশী হবে। কোন কিছু কাজ করা সম্পর্কে জানাও একটা শিক্ষা। যেমন: বাসা-বাড়ী কিভাবে করতে হয়? কিভাবে রান্না করতে হয়? কিভাবে চাষাবাদ করতে হয়? স্ত্রীর সাথে কেমন করে মেলামেলা করতে হয়? কিভাবে গোসল করতে হয়? কিভাবে বাচ্চাকে লালন-পালন করতে হয়? ইত্যাদি বিষয় সম্পর্কে জানা। আমরা একজোড়া পাখি থেকে শিক্ষা নিতে পারি। যেমন- একজোড়া পাখি জীবন-যাবনের জন্য স্থায়ী নিবাস হিসেবে বাসা তৈরী করে থাকে। একটি পুরুষ পাখি কি সুন্দর করে স্ত্রীকে আদর করে থাকে। পাখি তার প্রয়োজনে গোসল করে থাকে। বাচ্চা লালন-পালনের জন্য পাখির ত্যাগ স্বীকার যথেষ্ট। পাখি তার বাচ্চাদের জন্য খাবার সংগ্রহ করে এনে নিজে না খেয়ে বাচ্চাদের মুখে তুলে দেয়। একটি মুরগীও বাচ্চাদের রক্ষার্থে জীবন রাজি রেখে চিলকে তাড়িয়ে ধরে। এ সব সামাজিক বিষয়ে আমরা বিভিন্ন জীব-জন্তু থেকে শিক্ষা নিতে পারি।
হরিণ বাঘের সাথে বনে বসবাস করলেও তারা দলবদ্ধভাবে কিভাবে বসবাস করে থাকে। সেখান থেকেও মানুষ শিক্ষা নিতে পারে। যে সব বিষয়ে উৎকর্ষ সাধনের দরকার সে সব বিষয়ে মানুষ গুরুজন/শিক্ষক/উস্তাদের নিকট থেকে শিক্ষা নিতে পারে। হাবিল-কাবিলের ঘটনায় মৃত্যুর পর কিভাবে কবর দিতে হয়? সেটা তারা শিখেছিল একটি কাকের কাছ থেকে। একটি কাক গর্ত করে অন্য একটি মৃত কাককে কবর দিয়েছিল। আমরা শিখতে পারি একটি বিড়ালের কাছ থেকে। বিড়াল গর্ত খুড়ে মলত্যাগ করে থাকে। মলত্যাগের পর তা ভালভাবে ঢেকে দেয়। মলমুত্র কিভাবে ত্যাগ করতে হয় তা বিড়ালের কাছ থেকেও শিক্ষা লাভ করা যায়। একটি মাকড়সার বাসা করার কৌশল দেখে আমরা অনেক কিছু শিক্ষা লাভ করতে পারি।
ধর্মীয় জ্ঞান মানুষকে আল্লাহর সান্নিধ্যে নিতে সাহায্য করে। পবিত্র কুরআনের প্রথম শব্দই পড়া সম্পর্কে বলা হয়েছে। না পড়লে শিক্ষা লাভ করা যায় না। সে পড়া যে শুধু প্রচলিত ধর্মীয় জ্ঞান তা ঠিক নহে। ধর্মীয় জ্ঞান ছাড়া ইতিহাস, ভূগোল, রসায়ন, দর্শন, প্রাণী বিদ্যা, সমাজ বিজ্ঞানসহ সকল বিষয়ইতো মুলত আল্লাহর। তাই কোন জ্ঞানকেই ইসলামী জ্ঞান থেকে বাহির মনে করা ঠিক নহে। শুধু যে নামাজ, রোজা, হজ্জ ও যাকাতের মাসয়ালা জানাই ধর্মীয় জ্ঞান তা মোটেই ঠিক নহে। বরং সমস্ত বিষয়ের জ্ঞান আল্লাহ প্রদত্ত। তাই সব জ্ঞানই ধর্মীয় জ্ঞান। তা না হলে আদম আ:-কে আল্লাহ তা‘আলা বিভিন্ন বিষয় শিক্ষা দিয়ে শ্রেষ্ঠত্বদান করলেন কেন? আর কোথাও কি আছে যে, নামাজ রোজার জ্ঞানই ধর্মীয় জ্ঞান? তা কি কেউ দেখাতে পারবেন? আকাশ আল্লাহ তৈরী করেছেন, পরমানু আল্লাহ তৈরী করেছেন। তাই আকাশ তথা মহাবিশ্ব নিয়ে গবেষণা করা, পরমানু নিয়ে গবেষণা করাও তেমনি ধর্মীয় জ্ঞান গবেষণার সামিল। তবে তা সবই আল্লাহর উদ্দেশ্যে হতে হবে। আমরা শুধু কুরআন-হাদীস শিক্ষার কথাই বলি। আসলে প্রযুক্তিগত শিক্ষার কথা আমরা মোটেও খেয়াল করি না। এক ব্যক্তি মহানবীর কাছে ভিক্ষা চাইলে, মহানবী তাকে কুড়াল দিয়ে কাঠ কেটে খেতে বললেন। তখন কুড়ালই একটি যন্ত্র। সেই যন্ত্র আধুনিক হয়েছে। সেই আধুনিক যন্ত্রের সাহায্যে কাজ করাও মহানবীর শিক্ষা। তাই আসুন, ন্যায় ভিত্তিক, প্রযুক্তি ভিত্তিক, শিল্প ভিত্তিক ও জ্ঞান ভিত্তিক নৈতিক শিক্ষার সমন্বয়ে জাতিকে এগিয়ে নিয়ে যাই।