Deobandi akabira/দেওবন্দী আকাবির~~Hedaet Forum~~


Email: Password: Forgot Password?   Sign up
Are you Ads here? conduct: +8801913 364186

Forum Home >>> Biography >>> Deobandi akabira/দেওবন্দী আকাবির

Tamanna
Modarator Team
Total Post: 7639

From:
Registered: 2011-12-11
 

Deobandi akabira
Role
Deobandi alimaganake khariji, kaomi, darula uluma, darase niyami or alima called Deobandi. Deobande text - without having to read out the Deobandi. For example, Maulana kasema nanutabi, Moulana Hajee imadadullaha muhajire makki gold. They are not really well kaomi madarasaya education; kaomi Madrasah was established, and there have been darasadana. I spoke to those who qualify kaomi madarasaya darasadanera, they are considered kaomi alima madrasa. Search alimagana Deobandi madrasa kaomi akidaya true. The understanding and ability to kaomi madrasa alimagana showed evidence of superiority. Many of the first class in the Hadith of daoraye darula uluma deobanda madarasate right in the first place. For example, Maulana Sirajul Islam (ie sire), Maulana Sayeed Ahmad (sandipi sire), Maulana musahida (baiyamapuri), Maulana nurullaha (1910-197 and khr.) Muphati Maulana Nurul Haq (1918-1987 khr.), Maulana nuruddina gaoharapuri ( 19 and 4 - to 005 khr.) - along with many others. Earlier on various days in many Deobandi alima madarasaya darasadana by Hadith. - Such as Maulana muphati muhiuddina (1911-1981 khr.) India, Maulana Ashraf Ali thanabira as established by thanabana madarasaya muhaddisa. Maulana abdusa Salaam (ja khr 1945.) The role of the binanuri muhaddisa madarasaya baisa year. Maulana Abdul haphiya (19 and 4 - to 000 khr.) Pakistan was established pledge muphati saphira Muhammad, one of the nearly seven years of pharukiya madarasaya muhaddisa. Noor Husain maolana kasemi (ja khr 1949.) India muradiya madarasaya and hayadarabada mujaphpharabade madarasaya; Maulana Abdul High paharapuri (ja khr 1949.) Pakistan and Maulana mulatane Supplies (ja khr 1955.) Pakistan has a kaomi madarasate Hadith darasadana . Darula uluma deobanda madrasa attached sabbira Maulana Ahmad and Maulana Ibrahim usamani balayabi Bangladesh Maulana Sirajul Islam and Maulana Ahmad Sayeed hujurera student. They show the level of excellence. The kura-unsubscribe - Hadith which are not translated, but translated by his sirsabhagai alimadera kaomi madrasa. The madrasa alimagana kaomi muhaddisa anybody, anybody muphati, some muhatamima, as well as some sayakhula Hadith Hadith Hadith darasadana the muhaddisa practices are making it through. Some fifty years ago, some seventy years have muhaddisa through keuba darasadanera tadurdhakala Hadith Hadith studies and the contribution. The alimagana Hadith madrasa kaomi darasadana bibhinnastare as well as civil society - through some of the Islamic politics, no Aliya madarasaya, some tabaligera through, none of the Pir and some public universities, as well as Arabic and Islamic Studies muridadera section of the Hadith, the Hadith darasadana on labor practices. Profits go to education or any deobanda darula uluma madarasaya kura-unsubscribe - the practice of the Hadith, and no education or to gain from the Deobandi alimadera kura-unsubscribe - Hadith practices are. Deobande go or education benefits from the Deobandi alimadera however, yamrai kaomi madarasaya siadana have received education from a Deobandi alimadera and their ideology mean, this book has been called alima Deobandi them. Niue first chapter in the second chapter of foreign well-known Deobandi, and Deobandi alimadera alima sampti account (according to birth year) are discussed as follows: -

\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\\
দেওবন্দী আকাবির
দেওবন্দী আলিমগণকে খারিজী, কওমী, দারুল উলূম, দারসে নিযামী বা দেওবন্দী আলিম বলা হয়। দেওবন্দে লেখা-পড়া না করেও দেওবন্দী হওয়া যায়। যেমন, মাওলানা কাসেম নানুতবী, মাওলানা হাজী ইমদাদুল্লাহ মুহাজিরে মাক্কী প্রমুখ। তাঁরা কওমী মাদরাসায় শিা লাভ করেন নি বটে; কওমী মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করেছেন এবং সেখানে দারসদান করেছেন। তাই যাঁরা কওমী মাদরাসায় দারসদানের যোগ্যতা রাখেন, তাঁরাও কওমী মাদরাসার আলিম বলে বিবেচিত। বাংলাদেশের কওমী মাদরাসার আলিমগণ দেওবন্দী আকীদায় বিশ্বাসী। বাংলাদেশে কওমী মাদরাসার আলিমগণ মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে শ্রেষ্ঠত্বের প্রমাণ দেখিয়েছেন। দারুল উলূম দেওবন্দ মাদরাসাতে দাওরায়ে হাদীস শ্রেণীতে অনেকে প্রথম শ্রেণীতে প্রথম স্থান অধিকার করেছেন। যেমন, মাওলানা সিরাজুল ইসলাম (বড় হুজুর, মাওলানা সাঈদ আহমাদ (সন্দীপী হুজুর, মাওলানা মুশাহিদ (বাইয়ামপুরী, মাওলানা নুরুল্লাহ (১৯১০-১৯৭২ খৃ.), মাওলানা মুফতী নুরুল হক (১৯১৮-১৯৮৭ খৃ.), মাওলানা নুরুদ্দীন গওহরপুরী (১৯২৪-২০০৫ খৃ.)-সহ অনেকে। বাংলাদেশের অনেক দেওবন্দী আলিম উপমহাদেশের বিভিন্ন মাদরাসায় হাদীসের দারসদান করেছেন। যেমন- মাওলানা মুফতী মুহিউদ্দীন (১৯১১-১৯৮১ খৃ.) ভারতের মাওলানা আশরাফ আলী থানবীর প্রতিষ্ঠিত থানাবন মাদরাসায় মুহাদ্দিস হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। মাওলানা আব্দুস সালাম (জ. ১৯৪৫ খৃ.) পাকিস্তানের বিননুরী মাদরাসায় বাইশ বছর মুহাদ্দিস হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। মাওলানা আব্দুল হাফীয (১৯২৪-২০০০ খৃ.) পাকিস্তানের মুফতী মুহাম্মাদ শফীর প্রতিষ্ঠিত জামিআ ফারুকিয়া মাদরাসায় মুহাদ্দিস হিসেবে প্রায় সাত বছর দায়িত্ব পালন করেন। মাওলনা নূর হুসাইন কাসেমী (জ. ১৯৪৯ খৃ.) ভারতের মুজাফ্ফরাবাদে মুরাদিয়া মাদরাসায় ও হায়দারাবাদ মাদরাসায়; মাওলানা আব্দুল হাই পাহাড়পুরী (জ. ১৯৪৯ খৃ.) পাকিস্তানের মুলতানে ও মাওলানা মাহমুদুল হাসান (জ. ১৯৫৫ খৃ.) পাকিস্তানের একটি কওমী মাদরাসাতে হাদীসের দারসদান করেছেন। দারুল উলূম দেওবন্দ মাদরাসার রত মাওলানা শাব্বির আহমাদ উসমানী ও মাওলানা ইব্রাহীম বলয়বী বাংলাদেশের মাওলানা সিরাজুল ইসলাম ও মাওলানা সাঈদ আহমাদ হুজুরের ছাত্র। বাংলাদেশের মধ্যেও তাঁরা শ্রেষ্ঠত্ব দেখাতে সম হয়েছেন। বাংলাদেশে কুরআন-হাদীস যা কিছুই অনূদিত হোক না কেন তার শীর্ষভাগই কওমী মাদরাসার আলিমদের দ্বারা অনূদিত। বাংলাদেশে কওমী মাদরাসার আলিমগণ কেহ মুহাদ্দিস, কেহ মুফতী, কেহ মুহতামিম, কেহ শায়খুল হাদীস হিসেবে হাদীসের দারসদান করে মুহাদ্দিস তৈরীর মাধ্যমে হাদীস চর্চা করছেন। কেহ পঞ্চাশ বছর, কেহ সত্তর বছর কেউবা তদূর্ধকাল হাদীস দারসদানের মাধ্যমে অসংখ্য মুহাদ্দিস তৈরী করে হাদীস চর্চায় অবদান রেখেছেন। বাংলাদেশে কওমী মাদরাসার আলিমগণ হাদীসের দারসদান ছাড়াও সমাজের বিভিন্নস্তরে যেমন- কেহ ইসলামী রাজনীতির মাধ্যমে, কেহ আলিয়া মাদরাসায়, কেহ তাবলীগের মাধ্যমে, কেহ পীর হিসেবে মুরীদদের মাধ্যমে এবং কেহ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবী বা ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগে হাদীসের দারসদান করে হাদীস চর্চার প্রয়াস চালিয়েছেন। কেহ দেওবন্দ দারুল উলূম মাদরাসায় গিয়ে শিা লাভ করে বাংলাদেশে কুরআন-হাদীস চর্চা করেছেন, আবার কেহ বাংলাদেশে বসে দেওবন্দী আলিমদের থেকে শিা লাভ করে কুরআন-হাদীস চর্চা করছেন। দেওবন্দে গিয়ে হোক বা দেওবন্দী আলিমদের নিকট থেকে শিা লাভ করে হোক, যাঁরাই কওমী মাদরাসায় শিাদান করেছেন, দেওবন্দী আলিমদের থেকে শিা লাভ করেছেন এবং তাদের মতাদর্শে চলেছেন, এ গ্রন্থে তাদেরকেই দেওবন্দী আলিম বলে অভিহিত করা হয়েছে। নিুে প্রথম অধ্যায়ে বিদেশী বিখ্যাত দেওবন্দী আলিম ও দ্বিতীয় অধ্যায়ে বাংলাদেশী দেওবন্দী আলিমদের সংপ্তি জীবনী (জন্ম সাল অনুসারে আলোচনা করা হল:-






 

Tamanna

Modarator Team

Total Post: 7639
From
Registered: 2011-12-11
 

যরত শাহ আব্দুল আজিজ মুহাদ্দিছে দেহলবী (রহঃ) ১৭৪৬ ইং--------১৮২৪ইং জন্ম ও বাল্যকালঃ শাহ আব্দুল আজিজ ছিলেন শাহ ওয়ালী উল্লাহ মুহাদ্দিছে দেহলবী রহঃ এর পুত্র। ২৫ রমযান ১১৫৭ হিঃ/১১ অক্টোবর ১৭৪৬ সনে জন্মগ্রহন করেন। বাল্যকালেই কুরআন মাজীদ হিফজ করেন, তাজবীদ ও ক্বেরাত শিক্ষা করেন। এগার বছর বয়সে তাঁর আনুষ্ঠানিক শিক্ষা শুর” হয়। তার পিতা স্বীয় খলিফাদের মধ্যে একজন যোগ্য ব্যক্তিকে তাঁর শিক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত করেন। মাত্র দুই বছরে তিনি আরবি ভাষায় এবং বিভিন্ন বিষয়ে বিষ্ময়কর দক্ষতা অর্জন করেন। তাঁর স্বাভাবিক উদ্যম ও মেধার তুলনা বিরল। অতঃপর পিতার দরসে তিনি অংশগ্রহণ করেন। এই দরসে শুধু আলিম সমাজে খ্যাত অসাধারণ স্মৃতিশক্তিসম্পন্ন ছাত্ররা অংশ গ্রহণ করতেন। ষোল বছর বয়সে তিনি তাফসির, হাদীস, আকায়েদ, ফিক্বহ, উসুল, মানতিক, জ্যামিতি, গণিত, জ্যোতির্বিদ্যা, ইতিহাস, ভূগোল ইত্যাদি বিষয়ে বুৎপত্তি অর্জন করেন। কিন্তু তার বিশেষ আকর্ষণ ছিল কুরআন মাজিদের প্রতি। তিনি নিজেই বলেছেন, তার পিতা তার উস্তাজকে কুরআন মাজীদ শিক্ষা দেওয়ার জন্য বিশেষ তাকীদ দিতেন। পিতার মৃত্যুর পর তিরি ষোল বছর বয়সে অধ্যাপনার পৈতৃক দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তখন হতে মৃত্যু অবধি তিনি অধ্যয়ন, অধ্যাপনা, রচনা ও সংকলন, তাবলীগ ও মুরিদগণের তালীম এবং শিষ্যদের সাধনা পরিচালনায় ব্যাপৃত থাকেন। আলিম সমাজ তাঁকে সিরাজুল হিন্দ উপাধী প্রদান করেন। তাঁর স্মৃতি শক্তি ছিল অতুলনীয়। অনেক বিখ্যাত পুস্তকাদির সুদীর্ঘ উদ্ধৃতি তিনি মুখস্ত লেখাতে পারতেন। বাতিনী ও রূহানী জগৎ বিষয়ক জ্ঞানগর্ব বক্তব্য পেশ করলে মনে হত যেন সমুদ্র উদে ¦লিত হচ্ছে। কথা বললে উপস্থিত লোকজন বিমুগ্ধ হয়ে যেত। আর তাদের অন্তর আল্লাহ প্রেমের নূরে উদ্ভাসিত হয়ে যেত। তাঁর দৃষ্টিভঙ্গি ছিল এতই বাস্তবধর্মী ছিল যে, তিনি সৎ-নিয়তে ইংরেজী শিক্ষা করার ফতোয়া প্রদান করেন। তাঁর মৃত্যুর ৫০/৬০ বৎসর পরও অধিকাংশ আলিম এইরূপ স্থির মতামত প্রকাশে বিরত থাকেন। শাহ আব্দুল আযীয (রহঃ) প্রতি সপ্তাহে মঙ্গলবার ও শুত্রবার শিক্ষানিকেতনে ওয়াজ করতেন। এতে অসংখ্য আগ্রহী শ্রোতা যোগদান করতে। তাঁর বাচনভঙ্গি এতই চিত্তাকর্ষক ছিল যে, বিভিন্ন মাজহাব ও জাতির লোক তাঁর আলোচনায় তৃপ্ত হত। তাঁর কোন কথা কারো মনোকষ্টের কারণ হত না। প্রথম হতেই তাঁর আলোচনার রীতি ছিল খুবই পরিচ্ছন্ন এবং প্রাঞ্জল। কোন কঠিন বিষয়কে তিনি এমন সুন্দর ও সহজ ভাবে উপস্থাপন করতেন যে পন্ডিত ব্যক্তিরাও আশ্চর্য হয়ে যেত। সমসাময়িক কালে তিনি ছিলেন আলেম- শায়েখদের কেন্দ্রবিন্দু। তাঁর শিষ্যত্ব বড় বড় আলেমদেরও গর্বের বিষয় ছিল। তাঁর রচনাবলী প-িতদের কাছে প্রামাণ্য গ্রন্থরূপে বিবেচিত হয়। মৃত্যুঃ রমজান ১২৩৯ হিঃ/এপ্রিল ১৮২৪-এর শেষ দিকে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। অসুস্থতা বেড়ে গেলে নগদ সমস্ত সম্পত্তি তিনি শরীয়ত মুতাবিক ভ্রাতুষ্পুত্র ও যাবিল-আরহামদের মাঝে বণ্টন করে দেন। তাঁর পরিহিত বস্ত্র দ্বারাই তাঁর কাফন দানের ওসিয়ত করে যান। ৭ই শাওয়াল ১২৩৯/৫ই জুন ১৮২৪ সালের রবিবার সকালে তাঁর ইন্তেকাল হয়। তখন তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বৎসরের কিছু বেশি। পর পর পঞ্চান্ন বার তাঁর জানাযার নামাজ আদায় করা হয়। দিল্লীর তুর্কি দরজার বাইরে পারিবারিক গোরস্থানে পিতার কবর বরাবর তাঁকে দাফন করা হয়। উত্তরসূরীঃ তাঁর মাত্র তিন কন্যা ছিল। একজনের বিবাহ হয় ভ্রাতুষ্পুত্র ঈসার সঙ্গে, দ্বিতীয় জনের বিবাহ হয় অপর ভ্রতুষ্পুত্র মাওঃ আব্দুল হাই-এর সঙ্গে, তৃতীয় জনের স্ববংশীয় শাহ মুহাম্মদ আফজালের সঙ্গে। তৃতীয় কন্যার পুত্র শাহ মুহাম্মদ ইসহাক ও শাহ মুহাম্মদ ইয়াকুব তাঁর স্থলাভিষিক্ত ছিলেন। কিন্তু ১২৫৬ হিজরীতে তিনি ভারত হতে মক্কায় হিজরত করেন। রচনাবলীঃ তাঁর রচনাবলী নিম্নে উল্লেখ করা হল-* তাফসীরু ফাতহিল আযিয, সাধারণতঃ তাফসীরে আযীযী নামে পরিচিত। * তুহফায়ে ইসনা আশারিয়া * বুসতানুল মুহাদ্দিসীন (মুহাদ্দেসদের জীবনী গ্রন্থ) * উজালা-ই- নাফেয়া (উসূলে হাদীস) * সিদরুশ-শাহাদাতাইন (কারবালার ঘটনা) * আযীযুল ইকতিবাস ফী ফাদায়েলে আখরিন নাস (খুলাফায়ে রাশেদীনের ফজীলত সম্বলিত হাদীস ও ঐতিহাসিক বিবরণের সংকলন) * মীযানুল আকাইদ * ফাতাওয়ায়ে আযীযী (দুই খন্ড) * রসায়েলে খামসা (ফারসী ভাষায়) * মালফুজাতে শাহ আব্দুল আযীয Shah Abdul Aziz muhaddiche yarata dehalabi (R) 1746 1824 -------- Ying Ying was born and balyakalah Shah Abdul Aziz Shah Wali Ullah, son of Rh muhaddiche dehalabi. 5 of Ramadan 1157 AH / 11, was born in October 1746. Hiphaja puberty, the Quran, and kberata tajweed learned. His formal education began at the age of eleven is ". His father, a qualified person within the caliphs took charge of his education. In just two years, he was in Arabic, and the phenomenal skills. Rare compared to his usual enthusiasm and talent. Then he took part in his father's darase. This remarkable memory darase only known scholar students to take part in society. At the age of sixteen, he tafsir, hadith, akayeda, fiqh, to avenge, mantiq, geometry, mathematics, astronomy, history, geography, etc. mastered. But he was particularly attracted to the Quran Majid. He said his father used to urge his ustajake Quran to teach special. He continued teaching at the age of sixteen years after the death of his father took parental responsibility. Since the death of his study, teaching, writing and compilation, and the disciples preaching and muridaganera Taleem been engaged in the pursuit operations. Alim society gave him the title of Hind Kindle. His memory was unparalleled. He could quote lengthy text memorized many famous books. Jnanagarba batini and spiritual world of the statement seemed as if the sea is lita ude. People would have been present if the strike. And their hearts were exposed to the light of God's love. His view was that it was so realistic, he gave a fatwa to be honest-with the intention of learning English. 50/60 years after his death, refused to disclose the most Aleem such fixed views. Shah Abdul Aziz (R) sutrabara siksaniketane per week on Tuesday and was preaching. The results of the audience to join. His style was so impressive that many people Majahaba and was satisfied with his talks. He did not have any one cause anguish. His style was very clean and lucid from the beginning of negotiations. What matters, he also learned that it was presented in such a beautiful and simple way people would have been surprised. He was a center of contemporary alema sayekhadera. Alemaderao was proud of his disciple. His works are considered the major book-to itadera. Death of Ramadan 1239 AH / April at the end of 1824, he fell ill. The law increased the cash sickness mutabika nephew and all the property was distributed between yabila-arahamadera. He was dressed in clothes made by his shroud osiyata donations. 7th Shawwal 1239 / June 5, 1824, died on Sunday morning was his. When he was 80 years old and over. His funeral prayers were fifty-five consecutive times. Turkish father's tomb in Delhi outside the door along was buried in the family graveyard. Uttarasurih his three daughters. One married with his nephew, two people were married with another bhratusputra maoh Abdul Hai, a third of people with sbabansiya Shah Mohammad Afzal. The third daughter, son of Shah Muhammad Shah Muhammad Ishaq and was replaced by Jacob. 1256 AH, but he had migrated from India to Mecca. His works are included below are: * taphasiru phatahila racanabalih aziz, commonly known as ayiyi commentary. * * Busatanula muhaddisina asariya tuhaphaye ISNA (muhaddesadera biographies) * ujala-e-napheya (Usul al-Hadith) * sidarusa-sahadataina (Karbala incident) * Azizul ikatibasa fee phadayele akharina Nass (Khulaphaye Caliphs with the traditions and historical details phajilata compilation) * miyanula akaida * phataoyaye ayiyi (two volumes) * rasayele khamasa (Persian language) * malaphujate Shah Abdul Aziz.









Tamanna

Modarator Team

Total Post: 7639
From
Registered: 2011-12-11
 

হযরত শাহ ওয়ালীউল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলবী রহঃ ১৭০৩ ইং----১৭৬২ ইং জন্ম ও বংশ পরিচয়ঃ হযরত শাহ ওয়ালি উল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলবী (রহঃ) ১৭০৩ ইং বৃহস্পতিবার সূর্যোদয়ের সময় উত্তর ভারতে অবস্থিত তাঁর নানাবাড়ি মুজাফ্ফর নগর জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার মূল নাম আহমদ, উপাধি আবুল ফয়েজ, ঐতিহাসিক নাম আযীমুদ্দীন। তবে তিনি ওয়ালীউল্লাহ নামেই জগৎখ্যাত। তার পিতা শাইখ আব্দুর রহিম। বংশগত দিক থেকে হযরত উসমান (রাঃ) এর বংশধর, মতান্তরে হযরত উমর (রাঃ) এর বংশধর। তার মাতা ইমাম মুছা আল কাযিমের বংশধর। শিক্ষাকালঃ শৈশবেই তার আচার আচরণ ও সময়ানুবর্তিতার মধ্যে ভবিষ্যত মাহাত্ম্যের আভাস পাওয়া যায়। জযবে লতীফ নামক গ্রন্থে শাহ সাহেব নিজেই উল্লেখ করেছেন যে, যখন আমার পাঁচ বছর বয়স, তখন মক্তবে ভর্তি হই এবং পিতার নিকট ফার্সী শিক্ষা গ্রহণ করি। সাত বছর বয়সে আমার পিতা আমাকে নামায পড়ার আদেশ দেন এবং ঐ বছরই পবিত্র কুরানের হিফজ সমাপ্ত করি। অতঃপর পনের বছর বয়সের মধ্যেই তাফসীর, হাদীস, ফিক্বহ, উসূলে ফিক্বহ, তর্কশাস্ত্র, চিকিৎসা বিজ্ঞান, জ্যামিতি ইত্যাদি বিষয়ে পূর্ণ জ্ঞান অর্জন করি। চৌদ্দ বছর বয়সে স্বীয় পিতার হাতে বায়আত গ্রহণ করি এবং এ বছরে আমি বিবাহ করি। বিবাহের মাত্র দু’বছর পর পিতার ইন্তেকাল হয়। কর্মজীবনঃ পিতার ইন্তেকালের পর শাহ সাহেব মাদ্রাসায়ে রহীমিয়াতে অধ্যাপনার কাজে নিযুক্ত হন। এ সময় দীর্ঘ বার বছর যাবৎ শাহ সাহেব তাঁর পরিবার ও সামাজিক পর্যবেক্ষণ করেছেন এবং বহু উত্থান-পতন দেখার পর উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন যে, মুসলিম জাতিকে চলমান সমাজের অন্ধতা ও গোমরাহী থেকে বাঁচাতে হলে তিনটি বিষয় একান্ত প্রয়োজনঃ . যুক্তি দর্শনঃ শাহ সাহেব উল্লেখ করেন যে, তৎকালে মুসলমানেরা গ্রীক দর্শনের প্রতি ঝুঁকে পড়েছিল। আর এই দর্শনের মূল ভিত্তি হল তর্কশাস্ত্র। ফলে তখন মুসলিম সমাজে নানা রকম ফিৎনা- ফ্যাসাদের অনুপ্রবেশ ঘটে। সুতরাং সমাজকে এ রোগ থেকে মুক্ত করতে হলে যুক্তি- দর্শন শিক্ষা করা একান্ত প্রয়োজন। . আধ্যাত্বিক দর্শন বা তত্ত্বদর্শনঃ সে যুগের মুসলমানেরা কুরআন- সুন্নাহকে উপেক্ষা করে শুধু আধ্যাত্বিক সাধনাকে সাফল্যের চাবিকাঠি মনে করত। এমন কি সূফিদের অনুমোদন ছাড়া তারা কোন কিছুই সত্য বলে বিশ্বাস করত না। তাই যুগের প্রেক্ষাপটে আধ্যাত্বিক সাধনা তৎকালীন শিক্ষা ব্যবস্থার একটি অংশ বলে বিবেচিত হত। . ইলম বির-রিওয়ায়াহঃ অর্থাৎ রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মাধ্যমে যে জ্ঞান অর্জন হয়েছিল, এর মধ্যে কুরআনই প্রধান। শাহ সাহেব বলেন, উক্ত তিনটি বিষয় ছাড়াও তৎকালীন যুগের শিক্ষিত ব্যক্তিরা আত্মকেন্দ্রিকতার রোগে আক্রান্ত হয়েছিল। কোন জটিল বিষয়ের সম্মুখীন হলে, কেউ কারো সাথে আলাপ- আলোচনার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করত না। ছোট বড় সবাই নিজ নিজ ধারণা অনুযায়ী শরীয়ত সংক্রান্ত বিষয়ে একটা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করত। এ অবস্থার প্রেক্ষিতে তাঁকে উপযুক্ত তিনটি বিষয়ের প্রতি মনোনিবেশ করতে হয়েছে। বার বছর যাবৎ আলোচনা ,পর্যালোচনা ও গবেষণার পর সংস্কার দ্বারা সত্যোদ্ধারকে তাঁর বিপ্লবী আন্দোলনের কর্মসূচী হিসেবে গ্রহণ করেন। এ ব্যাপারে তিনি মৌলিকভাবে দুটি বিষয়ের প্রতি অধিক গুরুত্বারোপ করেনঃ . মানুষের ব্যবহারিক জীবন সম্পর্কে কুরআনের দৃষ্টিভঙ্গিই প্রকৃত পক্ষে কুরআনের অলৌকিকত্ব। পবিত্র কুরআনের এ ব্যবহারিক মূল্যায়নের প্রতিষ্ঠাকে তিনি তাঁর শিক্ষা সংস্কারের বুনিয়াদ রূপে গ্রহণ করেছিলেন। . সামাজিক ও অর্থনৈতিক ভারসাম্যের অভাবকে সমাজ-রাষ্ট্র ও জাতীয় জীবনের নৈতিক ব্যবহারিক বিপর্যয় ও বিশৃংখলার কারণ বলে তিনি নির্দেশ করেছিলেন। শাহ সাহেব এই দুইটি বিষয়কে সামনে রেখে তাঁর আন্দোলনের পথ যাত্রা শুরু করেন। তিনি ঘোষণা করেন যে, যদি কুরআনের অলৌকিকত্ব একমাত্র তাঁর ভাষাগত অলংকারেই সীমাবদ্ধ হয়, সেক্ষেত্রে কেবল নির্দিষ্ট সংখ্যক লোক ব্যতীত আর সবাই কুরআনের মাধুর্য থেকে বঞ্চিত থাকবে। তাই তিনি কুরআনের ব্যবহারিক দিক ও অর্থনৈতিক সমতাকেও তাঁর সংস্কারমূলক কর্মসূচীর অন্তর্ভূক্ত করেছিলেন। সাধারনভাবে নৈতিক জীবনবোধই হচ্ছে আধ্যাত্বিকতার ভিত্তি। আর নৈতিকতার বিকাশ তখনই ঘটবে,যখন অর্থনৈতিক দিক থেকে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়া যাবে। কিন্তু মানবজীবনের সাথে জীবিকার এই অবিচ্ছেদ্য সম্পর্ক কেউ কোনদিন উপলব্ধি করেনি। ফলে হয়েছে এই যে, আমাদের রাষ্ট্র ব্যবস্থা সার শূন্য হয়ে পড়েছে। বিদ্বান ও আধ্যাত্বিক জ্ঞানসম্পন্ন ব্যক্তিরা দেশের রাজনীতি থেকে মুক্ত থাকাকেই জীবনের সাফল্য মনে করত। পক্ষান্তরে শাহ সাহেব এ বাস্তবতাকে হকের নিরিখে বিচার করেছেন। তাঁর লিখিত গ্রন্থ ‘হুজ্জাতুল্লাহিল বালেগাহ’তে এ বিষয়ে বার বার দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে। মোটকথা সমাজ জীবনে অর্থনৈতিক ভারসাম্য বিধান একান্ত জরুরী। কারণ জীবিকা সংস্থানের দুশ্চিন্তা থেকে অবকাশ লাভের পর Hazrat Shah Waliullah Muhaddise dehalabi R 1703 1762 ---- Ying Ying was born, and the family of Hazrat Shah Wali Ullah Identities Muhaddise dehalabi (R) since 1703 on Thursday at sunrise, located in northern India, his grandfather was born in Muzaffar Nagar. His original name is Ahmed Abul Faiz title, ayimuddina historic name. However, as he jagatkhyata Waliullah. His father, Sheikh Abdul Rahim. The hereditary Uthman (ra), a descendant of, some say Umar (ra), the descendant. His mother, a descendant of Imam Musa al-kayimera. Siksakalah early glimpse of his behavior and the timeliness of greatness can be found in the future. Mr. Shah Latif jayabe the book itself has noted that, when I was five years old, was admitted to the escape and took his father to learn Persian. At seven years old, my father ordered me to prayer and the Holy Quran in the same year I finished hiphaja. But by the age of fifteen commentary, Hadith, fiqh, usul al-fiqh, logic, medicine, science, geometry, etc. are full of knowledge. At the age of fourteen years for his father at the hands of the oath of allegiance, and I am married. After just two years of marriage to his father's death. Karmajibanah after the death of his father, Shah Sahib was appointed to a professorship madrasaye rahimiyate. For years, Mr. Shah at the long bar, his family and social monitoring and realized that after watching the rise and fall of many Muslim nations in the society should have an exclusive three things to save you from blindness and error. Mr. Shah pointed out that the argument darsanah, then Muslims were bent on Greek philosophy. This philosophy is the foundation of logic. As a result, the Muslim society phitna kinds of corruption were introduced. So society free from the disease is essential if you want to learn yukti visit. . Muslim Quran or the Sunnah of the period tattbadarsanah spiritual philosophy ignores the spiritual meditation just felt the key to success. They are nothing without the approval of the suphidera did not believe to be true. Therefore, in the context of the era of spiritual pursuit was considered a part of the education system. . Bir-rioyayahah knowledge of the Prophet Muhammad PBUH was the knowledge that, in the Quran. Mr. Shah said that in addition to the three issues of the era of individualism educated people were affected. When faced with a complex matter, one would not feel the need to discuss with anyone alapa. All in accordance with their respective laws relating to the concept of big or small, a decision was taken. In appropriate circumstances, he has to concentrate on three things. For twelve years of discussion, analysis and research, as well as the reform program adopted by the satyoddharake his revolutionary movement. He is fundamentally about two things: for the greater importance. Its view of the practical life of the miracles of the Quran. The Holy Qur'an is accepted as a basis for evaluating the establishment of his education reforms. . A lack of social and economic balance of moral and practical life of society, the state and the national disaster and chaos, because he had directed. Keeping these two things Mr. Shah began his movement. He announced that, if only the linguistic miracle of the Quran alankarei is limited, if only everyone except a certain number of people will be deprived of its charm. Therefore, the practical aspects of the Quran and economic equality was included in his reform program. Typically, the inwardness of moral jibanabodhai. And the moral development happens when you can be economically self-sufficient. But with the livelihoods of the integral relationship between humankind has anyone ever realized. This has resulted in our state has become vacant fertilizer. Scholars and spiritual knowledge in the success of the country's political life, freedom from thought. On the contrary, the fact that Mr. Shah has judged in terms of the truth. Written in his book "hujjatullahila balegahate attention on the issue has been repeatedly. In short, the economic balance of the provision of essential social life. After seeking respite from anxiety because of the provision of livelihood









Tamanna

Modarator Team

Total Post: 7639
From
Registered: 2011-12-11
 

কারণ জীবিকা সংস্থানের দুশ্চিন্তা থেকে অবকাশ লাভের পরেই মানুষ নীতি,আদর্শ ও অন্যান্য দিকের উন্নতির প্রতি মনোযোগ দিতে পারে। তা না হলে মানবজীবন পশুজীবনে পরিণত হওয়া স্বাভাবিক। শাহ সাহেব এ সত্য উপলব্ধি করে মুসলিম মিল্লাতকে এ ঘোর অমানিশা থেকে মুক্ত করার লক্ষ্যে এ বিষয়ে সুষ্ঠু ও তত্ত্বমূলক গবেষণার জন্য তৈরী হন। কিন্তু এর জন্য প্রয়োজন হাদীস শাস্ত্রে পূর্ণ পাণ্ডিত্য। দিল্লীতে আশানুরূপ হাদীস গ্রন্থ না থাকায় তাকে হিজায সফর করতে হয়। হিজায সফর ঃ শাহ সাহেব নিজে উল্লেখ করেন, দীর্ঘ বার যাবৎ এ সকল বিষয়ে গবেষণা করার পর মক্কা-মদীনায় সফরের প্রতি আমার প্রবল আগ্রহ জন্মে। সুতারাং ১১৪৩ হিজরীতে মক্কা শরীফ চলে যাই এবং দুবছর সেখানে অবস্থান করে শায়খ আবু তাহির ও অন্য আলেমগণের নিকট চলে যাই এবং দু’বছর অধ্যয়ন করি। তিনি শায়খ আবু তাহির থেকে তাসাউফ এর শিক্ষা লাভ করে ১১৪৫ হিজরীতে দিল্লিতে ফিরে এসে সংস্কার আন্দোলন শুরু করেন। সংস্কার আন্দোলনের জন্য ফিক্বহ ও হাদীস শাস্ত্রে স্বাধীনভাবে ইজতেহাদের যোগ্যতা অর্জন করা আবশ্যক। মক্কা- মদীনায় অবস্থান করে শাহ আকবরের উদার নীতিতে যে নিয়ম ও রীতির প্রচলন হয়েছিল, তা পরিবর্তন করে নতুনভাবে শাসন ব্যবস্থা তৈরী করা একান্ত প্রয়োজন। এ দাবিকে সামনে রেখে তিনি তাঁর আন্দালনের কর্মসূচী পেশ করেন। তাঁর কর্মসূচীকে মোটামুটি আটটি ধারায় বিভক্ত করা যায়। . মুসলিম জাতির আকীদার সংশোধন ও কুরআনের প্রতি আহবানঃ প্রকৃতপক্ষে কোন দেশে সংস্কার আন্দোলন দ্বারা মানুষের আত্মসুদ্ধি করা অত্যন্ত কঠিন ব্যপার। এর জন্য প্রয়োজন আম্বিয়ায়ে কিরামের সংস্কার ধারা বজায় রেখে দ্বীনের পূর্ণ জাগরণ সৃষ্টি করা। সম্রাট আকবরের প্রবর্তিত তথাকথিত উদার নীতির ফলে মুসলমানদের ঈমান আকীদার ক্ষেত্রে যে বিশৃংখলা বিরাজ করছিল, তা সকলেরই জানা। সহজ-সরল মুসলিম জাতির বিভিন্ন ভাবধারা ও দর্শনপন্থীদের সাথে মেলামেশার ফলে, বিশেষ করে সম্রাট আকবরের আমলে হিন্দু সংস্কৃতির একক প্রাধান্যের কারণে ভারতবর্ষে শুধু নামধারী মুসলমানদের অস্তিত্ব ছিল। ইসলামী ধ্যান-ধারণা, ইসলামী আকীদা- বিশ্বাসের সাথে তাদের ব্যবধান ছিল আকাশ-পাতাল। শাহ সাহেব এ সত্যকে উপলব্ধি করে এ সিদ্ধান্তে উপনীত হন যে, এ বিপর্যয় থেকে মুসলিম জাতিকে হেফাজত করতে হলে ব্যাপকভাবে কুরআনের দাওয়াত প্রচার করতে হবে। মহাগ্রন্থ আল-কুরআন সার্বজনীন ও আর্ন্তজাতিক। যে যুগে যে কোন স্থানে এর বৈপ্লবিক নীতিকে অনুসরন করলে, ইসলামের প্রাথমিক যুগে (খোলাফায়ে রাশেদীনের) ন্যায় নব জাগরনের সূচনা সম্ভব। এ কাজের আঞ্জাম দিতে গিয়ে সর্বপ্রথম ফার্সী ভাষায় কুরআনের অনুবাদ করেন। যার নাম ফুতুহুর রহমান। এ কাজ করতে গিয়ে তাঁকে অনেক বিপদের সম্মুখিন হতে হয়েছে। এক শ্রেণীর আলেম তো বলেই উঠলেন, কুরআনের ভাষান্তর দ্বারা এর অলৌকিকত্ব ও মাধুর্যতা ক্ষুণহয়। সুতারাং এ কাজ কুফুরীর সমতুল্য। এক পর্যায়ে শাহ সাহেবের বিরুদ্ধে কুফুরী ফতোয়া দেওয়া হয়। কিন্তু এ কথা চির সত্য যে “কুকুরের ঘেউ ঘেউ চন্দ্রের আলোকে নেভাতে পারে না”। তাই তাঁর অবদান পৃথিবীতে স্বীকৃতরূপে বিরাজমান রইল। . ক. জনসাধারণের মাঝে হাদীস ও সুন্নাহ ব্যপকভাবে প্রচার ও প্রসার ঘটানোঃ এ বিষয়ে আলোচনা করতে হলে প্রথমে জানতে হবে , দ্বীনের মধ্যে হাদীসের গুরুত্ব কতটুকু? হাদীসের প্রচার ও তার সংরক্ষণ প্রয়োজন কেন? হাদীস সম্পর্কে অজ্ঞ থাকা বা অবহেলা প্রদর্শনে কী ক্ষতি? প্রকৃতপক্ষে হাদীস হল উম্মতের ঈমান- আকীদার জন্য মানদণ্ড তথা মাপকাঠি স্বরূপ। শাহ সাহেবের প্রথম কর্মসূচী ছিল কুরআনের প্রতি আহবান। এ কাজের জন্য হাদীসের প্রয়োজন কতটুকু আর আলোচনার অপেক্ষা রাখে না। তার কারণ, পবিত্র কুরআনের ব্যাখ্যাই হল সুন্নতে নববী। এরশাদ হচ্ছে “রাসুলুল্লাহ সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মাঝে রয়েছে তোমাদের জন্য উত্তম আদর্শ। ভারতে যে শিরক বিদআতের সয়লাব দেখা দিয়েছিল, তার একটা কারণ এও ছিল যে, হাদীস ও সুন্নাতে নববীর প্রতি অবহেলা ও অবজ্ঞা প্রদর্শন করা হত। “রাসুলুল্লাহ সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন, “যখন কোন সম্প্রদায় একটি বিদআতে লিপ্ত হয়, তখন তাদের থেকে একটি সুন্নাত উঠিয়ে নেওয়া হয়” (মিশকাত)। শাহ সাহেব সমাজ থেকে শিরক-বিদআতের প্রচলন রহিত করার জন্য সুন্নাতে নববী এবং হাদীস শাস্ত্রের ব্যাপক প্রচার- প্রসার শুরু করেন। মূলতঃ তিনিই উপমহাদেশে সর্বপ্রথম হাদীসের দরস চালু করেন। হাদীসের ক্ষেত্রে তাঁর অনেক অবদান রয়েছে। তন্মধ্যে লিখিত মুছাফ্ফা, মুছাওয়া, শরহে তরজমায়ে সহীহে বুখারী, আল-ফসলুল মুবীন মিন হাদীসিন নাবিয়্যিল আমিন ইত্যাদি গ্রন্থ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। খ. ফিক্বহ ও হাদীসের মাঝে সমন্বয়ঃ যুগ যুগ ধরে মুসলমানেরা হাদীস ও ফিকাহের চর্চা করে আসছে, কিন্তু তা ছিল বিভিন্ন ভাবে। শাহ সাহেব সর্বপ্রথম হাদীস ও ফিক্বহের মাঝে সমন্বয় সাধন করেন। Because the provision of livelihood to gain respite from the grief after the man principles, ideals, and to give attention to other aspects of development. If you do not become a normal human pasujibane. Mr. Shah is the perception of the Muslim Millat confused obsession to get rid of theological studies at the fair and was prepared for. But the need for a full scholarship written tradition. In the absence of the Hijaz to visit Delhi is expected Hadith. Mr. Hijaz tour: The Shah himself pointed out, a long time until all the research trip to the Mecca-Medina My enthusiasm grows. So 1143 AH Makkah Sharif Sheikh Abu Tahir went and stayed there for two years and moved to other scholars and study for two years. Shaykh Abu Tahir Tasauf to learn from the 1145 reform movement began in AH come back to Delhi. Fiqh and hadith for the reform movement ijatehadera qualify must be written independently. Akbar Shah Medina makka liberal policies that have been introduced in the rules and practices, to change it is essential to create a new regime. He andalanera program ahead of the demands presented. His program can be roughly divided into eight sections. . This belief of the Muslim community and its amendments to the reform movement in the country by ahabanah In fact, it would be very difficult to atmasuddhi people. Ambiyaye need for reform of the practice of maintaining the full awakening of religion to create. Emperor Akbar introduced the so-called liberal policy in the Muslim faith belief that there was a mess, it's all known. Simple Muslim nation darsanapanthidera Imbued with different ideas and, especially during the reign of Emperor Akbar in India due to a dominant Hindu culture existed only nominal Muslims. Islamic concepts, the sky-space underground Islamic akida their faith. Mr. Shah concluded appreciate the fact that the disaster in order to protect the Muslim nation to preach the message of the Quran widely. Holy Al-Quran and the international public. If you follow the principle of the revolutionary era it anywhere, the early period of Islam (rightly guided Caliphs) as the possible beginning of a new arousal. The first went to work in the mission of the Holy Quran was translated into Farsi. Rahman, whose name phutuhura. He went to work in a lot of danger has to be faced. So that was one of the scholars, and the miracles of the Quran translated by ksunahaya madhuryata. Therefore, in the equivalent of infidels. At one point, Mr. Shah was given a fatwa against the infidels. But the eternal truth that "barking dogs can not put out the light of the moon." His contribution was so prevalent in the world sbikrtarupe. . A. Hadith and Sunnah and spread widely among the public media to discuss the ghatanoh the first to know, what is the importance of religion in the Hadith? Why is it important to preserve and promote the Hadith? What is appearing to be ignorant or negligent loss of tradition? In fact, as a measure of the traditions of the community, as well as the criteria for imana belief. Shah was the program's first call to the Quran. How much work will need to discuss this hadith does not wait. Because the Sunnah of the Holy Quran Nawawi explained. Ershad said: "The Messenger of Allah to the Prophet Muhammad is a good example for you. There has been flooded with innovation partners in India, he was also one of the reasons that the Hadith and the Sunnah Prophet's Mosque was ignored and rejected. "Muhammad the Messenger of Allah's Apostle says," When a nation is engaged in a bidaate, then was lifted for a Sunnah "(Mishkat). Shah Sahib-innovation partners to society to end the practice of Sunnah and Hadith Nawawi pracara expansion of the Scriptures began. He was originally introduced in the subcontinent darasa first hadith. Hadith his many contributions. Written in the midst of muchaphpha, muchaoya, tarajamaye sahihe Sharh Bukhari, Al-Amin, etc. phasalula Mubeen min hadisina nabiyyila notable book. B. Hadith, fiqh and hadith and fiqh among Muslims samanbayah practice has been for ages, but it was a different way. Mr. Shah was the first co-ordination between the Hadith and fiqh. .









Tamanna

Modarator Team

Total Post: 7639
From
Registered: 2011-12-11
 

. যুক্তিপূর্ণ ব্যাখ্যার আলোকে কুরআনিক দৃষ্টিভঙ্গির উপস্থাপন এবং সুন্নাতে নববীর রহস্য উদঘাটনঃ অনেকে ধারণা করে থাকেন যে, শরীয়তের হুকুম-আহকাম কোন উদ্দেশ্যের উপর প্রতিষ্ঠিত নয়। কাজের সাথে তার ফলাফলের কোন সম্পর্ক নেই। এ ধারণা ভুল। ইজমা, কিয়াস ও খাইরুল কুরুন উক্ত মতবাদকে খণ্ডন করেছে। যেমন নামায। এ হুকুম আল্লাহকে স্মরণ করা এবং তাঁর মুনাজাতের জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। গরীব ও অসহায়দের অভাব অনটন দূর করা এবং অন্তর থেকে কৃপণতার ছাপ মুছে ফেলার জন্য যাকাতের বিধান দান করা হয়েছে। অন্তরকে কুপ্রবৃত্তির প্রভাব থেকে মুক্ত রাখার জন্য সিয়াম বা রোযা ফরজ করা হয়েছে। আল্লাহর বাণীর ব্যপক প্রচার-প্রসার এবং ফিৎনা- ফ্যাসাদ দূর করার লক্ষ্যে জিহাদের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে ইত্যাদি। অনুরূপভাবে রাসুলুল্লাহ সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর আদেশ-নিষেধের মধ্যেও কোন কোন রহস্য লুকায়িত রয়েছে। যেমন যোহরের পূর্বে চার রাকাত নামায সম্বন্ধে রাসুলুল্লাহ সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “ঐ আকাশের দ্বার উন্মুক্ত করা হয়, আমার ইচ্ছে হয় এ সময় যেন আমার নেক আমল উর্ধ্বারোহন হয়”। এভাবে প্রত্যেক হুকুমের মাঝে কোন কোন রহস্য লুকায়িত রয়েছে। এক শ্রেণীর মানুষ মনে করত, ইসলামী হুকুম- আহকাম যুক্তির আলোকে বিশ্লেষণ করা এবং এগুলোর রহস্য উদঘাটন করা ইসলামের জন্য ক্ষতিকারক। শাহ সাহেব বলেন এ ধারণা ভুল। কারণ যুক্তির আলোকে ইসলামী হুকুম- আহকামকে বিচার- বিশ্লেষণ করলে ক্ষতি নয় বরং উপকার হবে। যেমন আমলের প্রতি আগ্রহ বাড়বে, এছাড়া ফিক্বহী ইজতেহাদের ক্ষেত্রে যথেষ্ট সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি হবে। এদিকে লক্ষ্য করে শাহ সাহেব এ কাজকে তার বিপ্লবী কর্মসূচীর অর্ন্তভূক্ত করেন। . ইসলামী খিলাফতের ব্যাখ্যা ও তার সততা প্রমাণ এবং বিরুদ্ধবাদীদের সমূচিত জবাবঃ আল্লাহ পাক মানুষকে সৃষ্টি করেছেন তার দাসত্ব করার জন্য। সাথে সাথে পৃথিবীর পরিচালনা সুষ্টুভাবে আঞ্জাম দেয়ার জন্য যে দায়িত্ব দিয়েছেন তা হল খিলাফত। এই খিলাফত মানব জীবনের একটি মৌলিক বিষয়। এর মধ্যে নিহিত রয়েছে বহু কল্যাণকর দিক। শাহ সাহেব এর গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা জনসাধারনের মাঝে এমনভাবে উপস্থাপন করেছেন তার কোন তুলনা নেই। তিনি তাঁর ইযালাতুল খিফা নামক গ্রন্থে খিলাফতের ব্যাখ্যা এভাবে দিয়েছেন, “খিলাফত অর্থ- সাধারনের ক্ষমতা লাভ করায় ইলমে দ্বীনকে জিন্দা করার মাধ্যমে দ্বীন প্রতিষ্ঠা করার জন্য, ইসলামের বিধি- বিধান ও জিহাদ এবং তার সংশ্লিষ্ট বিষয়াদী যেমন সৈন্য বিন্যাস, যোদ্ধা তৈরি ইত্যাদি সংস্থাপনের জন্য এবং দণ্ডবিধি প্রয়োগ করা, জুলুম শাষণ বিনাশ করা, সুপথের আদেশ ও কুপথের নিষেধ প্রভৃত্তিকে কায়েম করা হযরত রাসুলুল্লাহ সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর স্থলাভিষিক্ত রূপে”। এসময় আরো একটি বিষয় মুসলমানদের মাঝে ভয়াবহ আকার ধারণ করেছিল, তা হল খিলাফতে রাশেদা সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ। শাহ সাহেব বিরুদ্ধবাদীদের এ সকল ভ্রান্ত ধারণাকে এমন ভাবে খণ্ডন করেন, যা যথাযথই যুক্তিযুক্ত ছিল। তাঁর সবগুলি যুক্তিই ছিল কুরআন হাদীসের ভিত্তিতে প্রণীত। তিনি এ ব্যাপারে একটি গ্রন্থ ও রচনা করেছেন, তার নাম ইযালাতুল খিফা আন খিলাফাতিল খুলাফা। . শ্রমজীবিদের উপর থেকে অত্যধিক চাপ রহিত করা এবং শ্রমিক শ্রেণির যথাযথ মূল্যায়ন দানঃ শাহ সাহেব বলেন, শ্রমজীবীদের উপর থেকে চাপ রোধ করা ব্যতীত সমাজে ভারসাম্য সৃষ্টি হতে পারে না। (বাস্তব প্রমান সেবিয়েত ইউনিয়নের পতন)। অতীতে রোম পারস্য যে নৈতিক অধঃপতন নেমে এসেছিল, তার মূল কারণ ছিল শ্রমিক নিপিড়ন। সুতারাং সমাজে ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতে হলে কুরআনের সেই বৈপ্লবিক চেতনা ফিরিয়ে আনতে হবে। শাহ সাহেব সেই চেতনাকে ফিরিয়ে আনার জন্য যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেন। . উম্মতে মুহাম্মদীর সর্বস্তরের জনগণের প্রতি সংশোধনের আহ্বানঃ শাহ সাহেব দরস-তাদরীসের পাশাপাশি সমকালীন সামাজিক বিশৃংখলা ও তার ব্যাধি সম্পর্কে পূর্ণ অবগত ছিলেন। তিনি সমাজের সর্বস্তরের রোগ সম্পর্কে অবগত হয়ে সকলকে সংশোধনের প্রতি আহবান জানান। . শিক্ষা ও তরবিয়তের মাধ্যমে যোগ্য উত্তরসূরী তৈরী করাঃ যারা পরবর্তীতে তার আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পরেন এরূপ কিছু মুজাহিদ তৈরী করা ও তার কর্মসূচীর অন্তর্ভূক্ত ছিল। এরই প্রতিফলন হল শাহ আব্দুল আজিজ, শাহ মুহাম্মদ ইসহাক, মুহাম্মদ বেলায়ত আলী, সৈয়দ আহমদ বেরেলভী, শাইখুল হিন্দ মাওলানা মাহমুদুল হাসান দেওবন্দী, শাইখুল ইসলাম মাওলানা হুসাইন আহমদ মাদানী (রহঃ) (যার আলোচনা পরে করব ইনশা আল্লাহ) প্রমুখ আলেমগণ। . সমকালীন রাজনৈতিক অস্থিরতা ও দূর্যোগের কবল থেকে মুসলিম জাতিকে উদ্ধার করাঃ পূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, সম্রাট আলমগীরের মৃত্যুর পর ভারতে যে রাজনৈতিক বিশৃংখলা দেখা দিয়েছিল, তা মুসলমানদের জন্য খুবই বিপদজনক ছিল। শাহ সাহেব মুসলিম জাতিকে এ দূর্যোগ থেকে উদ্ধারের লক্ষ্যে জনসাধারনের মাঝে জিহদী প্রেরণা সৃষ্টি In the light of the rationale and the Sunnah Prophet's Mosque, Koranic point of view, many people think that the mystery udaghatanah, commands pertaining to the law is not based on any purpose. He has nothing to do with the result. The concept is wrong. Consensus, and Khairul Kuru Qiyas refuted the theory. As the prayer. This mandate has been established to remember God and his prayers. The poor and the needy and the poor from the heart to remove the impression of stinginess has been given to the provision of Zakat. Heart desires to break free from the effects of fasting or fasting is obligatory. A widely-spread the Word of God and Jihad, has announced a bid to reduce corruption, etc. phitna. Similarly, the Messenger of Allah ordered his Prophet Muhammad prohibitions also has some hidden mystery. About four rak'ahs before Zuhr Muhammad as the Messenger of Allah's Apostle said, "The gates of heaven are open, my heart is urdhbarohana at the time that my good deeds." What mystery is hidden in the middle of each command. It was a class of people, to be analyzed in the light of reason and the rulings of Islamic hukuma mystery harmful to Islam. Mr. Shah said the wrong idea. In the light of the arguments of Islamic hukuma ahakamake bicara will benefit analysis rather than harm. The increase of interest in such period, the phikbahi ijatehadera will create sufficient facilities. The aim of the Shah Sahib was included in the work of its revolutionary program. . Interpretation of Islamic caliphate and its integrity biruddhabadidera samucita evidence and answer: Allah has created man to slavery. The responsibility to lead the world with the mission sustubhabe the Caliphate. The caliphate is a fundamental issue of human life. Many of the beneficial aspects of lies. Mr. Shah has been presented in such a manner among the public of the importance and necessity There is no comparison. He explained that the Caliphate iyalatula khipha book called "Caliphate common means to gain power through the Ilm religion alive in order to establish the religion of Islam and jihad and its related affairs, such as the provision of bidhi troops layout, etc. to install the fighters and criminal procedure to be applied, have been ruled to be destroyed, and evil way of guidance, the Messenger of Allah commanded the Prophet Muhammad PBUH prabhrttike be established as the successor of. " In the meantime, had become a more serious issue among Muslims, expressed doubts about the Caliphate Rashida. Mr. Shah biruddhabadidera a way to refute these false ideas, which were in fact reasonable. All the arguments that were made on the basis of the Qur'an and Hadith. And in this regard he wrote a book called An khilaphatila khulapha iyalatula khipha. . Too much pressure on the workforce repealed and proper assessment of the working class danah Shah Sahib said, pressure on workers to prevent the balance of society can not be without. (Tangible evidence sebiyeta Union fall). In the past, the moral decline of Rome, Persia came down, it was the root cause of oppression of workers. Therefore, to restore the balance in the society, the revolutionary spirit of the Quran must be taken back. Mr. Shah, all took steps to bring back the spirit. . Muhammadira community all walks of life call to the people to amend the Shah Sahib darasa-tadarisera as well as contemporary social chaos and disorder was aware of the full. All walks of life to become aware of the disease, he urged all to reform. . Tarabiyatera alternative method of education and the worthy successor to those who wear the movement of these products and some of the fighters were included in the program. The reflection of the Shah Abdul Aziz, Shah Muhammad Ishaq, Muhammad belayata Ali, Syed Ahmed Berelvi, Sheikh ul Hind Maulana Mahmood Hasan Deobandi, Maulana Hussain Ahmad Madani, Shaykh al-Islam (R) (which we will discuss later, Insha Allah), scholars and others. . Contemporary Muslim nation from political instability and disaster recovery alternative method that has been mentioned above, after the death of Emperor Alamgir political chaos that occurred in India, it was too dangerous for Muslims. Shah Sahib Muslim nation to recover from the disaster caused by the public between the jihadi motivation









Tamanna

Modarator Team

Total Post: 7639
From
Registered: 2011-12-11
 

জিহদী প্রেরণা সৃষ্টি করেন। ইন্তেকালঃ ৫৯ বছর বয়সে ১১৭৬ হিজরীর ২৯শে মুহাররম জোহরের সময় হযরত শাহ ওয়ালি উল্লাহ (রহঃ) দিল্লিতে ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি চারজন যোগ্য সন্তান রেখে যান। তারা হলেন শাহ আব্দুল আজিজ, শাহ বদিউদ্দীন শাহ আব্দুল কাদির ও শাহ আব্দুল গণী। রচনাবলীঃ বিশেষজ্ঞদের মতে তার রচনাবলী দুইশতের অধিক। হাদীছ, তাফসীর, ফিক্বহ, উসূলে ফিক্বহ, রাষ্ট্রনীতি তাসাউফ নির্বিশেষে প্রায় সকল ক্ষেত্রেই তার অবদান রয়েছে Jihadi motivation was coined. Muharram 1176 AH at the age of 59 noon on 9 intekalah Hazrat Shah Wali Ullah time (R), died in New Delhi. She left behind four children to death. They Abdul Aziz Shah, Shah Abdul Qadir Shah and Shah Abdul Ghani Badiuddin. Racanabalih According to experts, more than two hundred of his works. Hadeeth, tafsir, fiqh, usul al-fiqh, almost in all cases, regardless of politics Tasauf his contributions.